সোশ্যাল মিডিয়ার কারণে তরুণরা অলস হচ্ছে, কর্মক্ষমতা হ্রাস পাচ্ছে'

মনোবিজ্ঞানী অধ্যাপক ডা. মোহিত কামাল মনে করেন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে তরুণরা সমাজে ভালো-মন্দ দু'ধরনের ভূমিকাই রাখছে৷ তবে দুশ্চিন্তার বিষয় হলো, দিনের খুব বড় একটা সময় এই মাধ্যমে ব্যস্ত থাকায় তরুণদের অলসতা বাড়ছে৷
অধ্যাপক ডা. মোহিত কামাল: এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ আমরা ছোটবেলায় মাঠে যেতাম৷ এখন মাঠ নেই৷ শিশুরা ঘরে থাকে৷ এখন তাদের বিনোদনের মাধ্যম বলতে সোশ্যাল মিডিয়া৷ সেখানে তারা চ্যাট করছে, আড্ডা দিচ্ছে৷ এর ফলে ব্যক্তি যোগাযোগ ভয়ংকরভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে৷ এর কিছু ভালো দিক আছে৷ যেমন এবারের বইমেলায় আমার চারটি বই বের হয়েছে৷ সেটা আমি সোশ্যাল মিডিয়ায় দিয়ে দিলাম, আমার পাঁচ হাজার বন্ধু সেটা দেখল, তারা বইটা নিয়ে সমালোচনা করল, আলোচনা করল, তাতে আমি সমৃদ্ধ হলাম৷ তবে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে আবেগের চাপ থাকলে সেটা একটু রিলিজ করে৷ আর অপজিট সেক্সের প্রতি দুর্বলতা আমাদের সহজাত প্রবণতা৷


এই সোশ্যাল মিডিয়ায় খুব সহজেই মেয়েবন্ধু পাওয়া যায়, ছেলেবন্ধু পাওয়া যায়৷ এই যোগাযোগের কারণে মানুষের আবেগ একটা জায়গায় আবদ্ধ থাকছে না৷ চেঞ্জ হয়ে যাচ্ছে৷ এই সম্পর্ক ব্যক্তি জীবনকে ক্ষতিগ্রস্ত করে৷ আরো ভালো উদাহরণও আছে৷ এই সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমেই আমাদের গণজাগরণ মঞ্চের তৈরি হয়েছিল৷

সব জায়গায় খারাপ গ্রুপ আছে, এখানেও আছে৷ ওই গ্রুপগুলো মেয়েদের টার্গেট করে, গৃহবধুদের টার্গেট করে৷ দীর্ঘদিন ধরে একটা সম্পর্ক তৈরি করে, এরপর তারা অনৈতিক সম্পর্ক করে এবং সেটা ভিডিও করে পরে ব্ল্যাকমেল করছে৷ এমন একজন নারী আমার কাছে এসেছিলেন তিনি ওই খপ্পরে পড়ে নিজের অ্যাপার্টমেন্টটিও তাদের লিখে দিয়েছিলেন৷ তাতেও নিষ্কৃতি পাননি৷ পরে তিনি মানষিক রোগী হয়ে যান৷

মন্তব্যসমূহ