দৃষ্টিহীনদের দাবার পৃষ্ঠপোষকতায় ওয়ালটন



দাবার ইতিহাসের মতোই পুরনো দৃষ্টিহীনদের দাবার ইতিহাস।
২০০২ সালে প্রতিষ্ঠা লাভ করে বাংলাদেশ ব্রেইল চেস সোসাইটি।তাদের ব্যবস্থাপনায় এরপর থেকে আয়োজিত হচ্ছে দৃষ্টিহীনদের নানা ধরণের দাবা প্রতিযোগিতা। ব্রেইল চেস সোসাইটির পাশাপাশি আরো কিছু সংগঠন দৃষ্টিহীন দাবাড়ুদের নিয়ে কাজ করছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ন্যাশনাল ফেলোশিপ ফর দি অ্যাডভান্সমেন্ট অব ভিজ্যুয়ালি হ্যান্ডিক্যাপড (এনএফএভিএইচ)।
তবে দৃষ্টিহীনদের দাবা প্রতিযোগিতায় তেমন একটা পৃষ্ঠপোষকতা পাওয়া যায় না। তাই ইচ্ছা থাকলেও অনেক সময় আয়োজন করা যায় না বড় কোনো টুর্নামেন্ট। কিন্তু এবার দৃষ্টিহীনদের দাবায় পৃষ্ঠপোষকতা করতে এগিয়ে এসেছে দেশের স্বনামধন্য ইলেকট্রিক্যাল, ইলেকট্রনিকস, অটোমোবাইলস, হোম অ্যাপ্লায়েন্স ও টেলিকমিউনিকেশন পণ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন।


১৫ অক্টোবর বিশ্ব সাদাছড়ি নিরাপত্তা দিবস।এই দিবসকে সামনে রেখে আগামী ১২ অক্টোবর থেকে আয়োজিত হবে দৃষ্টিহীনদের দাবা প্রতিযোগিতা। যা শেষ হবে ১৫ অক্টোবর। এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া প্রত্যেক দৃষ্টিহীন দাবাড়কে ওয়ালটন গ্রুপের পক্ষ থেকে একটি করে সাদাছড়ি দেওয়া হবে।
ওয়ালটন গ্রুপের স্পোর্টস এন্ড ওয়েলফেয়ার বিভাগের প্রধান এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন) এ বিষয়ে বলেন, ‘সবার সঙ্গেই ওয়ালটন গ্রুপ কাজ করতে আগ্রহী। সমাজের বিভিন্ন ধরণের সুবিধবঞ্চিত মানুষদের নিয়ে আমরা কাজ করছি এবং করতে চাই। যাতে সমাজের প্রত্যেকটি ট্রাকের মানুষই খেলাধুলার সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পারে। দৃষ্টিহীনদের দাবা একটি ভিন্ন ধরণের আয়োজন। আসন্ন বিশ্ব সাদাছড়ি নিরাপত্তা দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত দৃষ্টিহীনদের জাতীয় দাবা প্রতিযোগিতার সঙ্গে ওয়ালটন গ্রুপ সম্পৃক্ত হয়েছে। আসলে দৃষ্টিহীনদের বিনোদনের বিষয়টি সব সময়ই উপেক্ষিত থাকে। তাদের জন্য বিনোদনের ব্যবস্থা করতে আমরা নিয়মিতভাবে চেষ্টা করব এই ধরণের প্রতিযোগিতার সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে।
এ বিষয়ে ন্যাশনাল ফেলোশিপ ফর দি অ্যাডভান্সমেন্ট অব ভিজ্যুয়ালি হ্যান্ডিক্যাপড (এনএফএভিএইচ) এর মহাসচিব ও এক্সিকিউটিভ মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘আসলে আমাদের দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের বিনোদনের বিষয়টা খুবই উপক্ষিত। আমরা বিনোদনটা উপভোগ করতে পারি না। ওয়ালটনের মতো কোম্পানিগুলো আমাদের বিনোদনের বিষয়ে এগিয়ে আসলে আমরা খুবই উপকৃত হব। ওয়ালটন গ্রুপ আমাদের যে সাপোর্ট দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সেটা নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবিদার। ওয়ালটনের মতো অন্যান্য কোম্পানিগুলোও যেন আমাদের বিনোদনে বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখে এবং এই ধরণের প্রতিযোগিতা আয়োজন করে, সেই আবেদন থাকল। আশা করছি আসন্ন ১৫ অক্টোবরের ৪৮তম বিশ্ব সাদাছড়ি নিরাপত্তা দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত এই প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কমপক্ষে ৬০ জন দৃষ্টিহীন দাবাড়ু অংশ নেবেন।

আমিনুল ইসলাম 

মন্তব্যসমূহ