ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে রায়: পদত্যাগ করবেন ক্যামেরন



ব্রিটিশ জনগণ ইউরোপীয় ইউনিয়ন বা ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে রায় দেয়ার পর প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামরন পদত্যাগ করার কথা ঘোষণা করেছেন। তিনি আজ (শুক্রবার) লন্ডনের ডাউনিং স্ট্রিটে সাংবাদিকদের বলেছেন, তিনি অক্টোবর নাগাদ- আগামী শরতে পদত্যাগ করবেন। সে সময় তার দল কনজারভেটিভ পার্টির সম্মেলন হওয়ার কথা রয়েছে।


গণভোটের আগে প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরন ইইউতে থেকে যাওয়ার পক্ষে রায় দেয়ার জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন।
কিন্তু  বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত গণভোটে ২৮ জাতির ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে রায় দেয় ব্রিটিশ জনগণ। প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরন আজ বলেছেন, তার দেশের জনগণের এই আকাঙ্ক্ষার প্রতি সম্মান জানানো উচিত। তবে ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে ওই ইউনিয়নের সঙ্গে কঠিন আলোচনায় তিনি নেতৃত্ব দিতে পারবেন না বলেও সাফ জানিয়ে দেন ক্যামেরন।
গত ৪৩ বছর ধরে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য ছিল বৃটেন। কিন্তু বৃহস্পতিবারের গণভোটে শতকরা ৫১.৯০ ভাগ ভোটার ওই ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে রায় দেন। আর ইইউতে থেকে যাওয়ার পক্ষে হ্যা ভোট দেন ৪৮.১০ ভাগ ভোটার। অর্থাৎ এক কোটি ৭৪ লাখ ব্রিটিশ নাগরিক জানিয়েছেন, তারা আর ইইউর সঙ্গে থাকতে চান না। অন্যদিকে এক কোটি ৬১ লাখ নাগরিক বলেছেন, তাদের দেশের উচিত ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে জোটবদ্ধ থাকা। বৃহস্পতিবারের গণভোটে প্রায় ৭২ শতাংশ নিবন্ধিত ভোটার অংশ নিয়েছেন।
ব্রিটেনের গণভোটের এ ফলাফল ইউরোপের রাজধানীগুলোতে কঠোর বার্তা পৌঁছে দিয়েছে। ফরাসি প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওলাঁদ ও জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেলসহ ইইউভুক্ত দেশগুলোর সব নেতা এর উল্টো ফলাফল চেয়েছিলেন।
ফলাফল ঘোষিত হওয়ার পর জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রাঙ্ক-ওয়াল্টার স্টেইনমেয়ার বলেছেন, ব্রিটিশ জনগণের এ রায় ব্রিটেন ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের জন্য একটি দুঃখজনক দিনবয়ে এনেছে। এদিকে ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী আলেক্সান্ডার স্টাব ব্রিটেনের গণভোটের ফলাফলকে অত্যন্ত খারাপ দুঃস্বপ্ন বলে অভিহিত করেছেন। তিনি বলেছেন, এর ফলে ইউরোপ জুড়ে সংকট ও গণ্ডগোল দেখা দিতে পারে।
গণভোটের ফলাফল ঘোষিত হওয়ার পর গত তিন দশকের মধ্যে ব্রিটিশ পাউন্ড স্টার্লিংয়ের দাম সর্বনিম্ন নেমে গেছে। লন্ডনের শেয়ার বাজারেও মারাত্মক দরপতন হয়েছে।
উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে ইইউর প্রতিষ্ঠাতা ছয় সদস্যদেশ জার্মানী, ফ্রান্স, হল্যান্ড, ইতালি, বেলজিয়াম ও লুক্সেমবার্গের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা আগামীকাল (শনিবার) বার্লিনে জরুরি বৈঠকে বসবেন।

মন্তব্যসমূহ