বিএনপি কী গণতন্ত্র ও মুক্তিযুদ্ধে বিশ্বাসী?

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দ্রুত সম্পন্ন করে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করার আহ্বান এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশকে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যয়ের মধ্য দিয়ে জাতি উদযাপন করল স্বাধীনতার ৪৫তম বার্ষিকী। বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় স্মরণ করা হলো পরাধীনতার শৃঙ্খল ভেঙে স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনার সশস্ত্র যুদ্ধে জীবন উৎসর্গ করা মহান শহীদ, নির্যাতিতা নারী ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের।  আর বাংলাদেশ-ভারত এবং পাকিস্তানি রাজনীতির আদর্শ একবারেই বিপরীত। পাকিস্তানি রাজনীতি করে যেমন বাংলাদেশে রাজনীতি করা যায় না, তেমনি ভারতবিরোধিতার বাইরেও আসা যায় না। বিএনপি যদি বাস্তবেই বাংলাদেশের রাজনীতি করতে আগ্রহী হয়, ভারতবিরোধী রাজনীতির চক্র থেকে বেরিয়ে আসতে আগ্রহী হয় তবে সর্বাগ্রে পাকিস্তানের ধর্মভিত্তিক, মৌলবাদী, সাম্প্রদায়িক, জঙ্গিবাদী রাজনীতি ছাড়তে হবে, ভুল স্বীকার করে প্রকাশ্যে ঘোষণা দিয়ে। তাহলেই তারা মুক্তিযুদ্ধে বিশ্বাসী গণতান্ত্রিক দল হবে।

মন্তব্যসমূহ

Nahid বলেছেন…
হত্যার আগে ধর্ষিত হয় নি। ধর্ষিত হয়েছে মৃত্যুর পরে। কারা সেই ধর্ষক?
Unknown বলেছেন…
বাংলাদেশে রাজনীতি করা যায় না
Unknown বলেছেন…
সর্বাগ্রে পাকিস্তানের ধর্মভিত্তিক, মৌলবাদী, সাম্প্রদায়িক, জঙ্গিবাদী রাজনীতি ছাড়তে হবে,
Unknown বলেছেন…
এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশকে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যয়ের মধ্য দিয়ে জাতি উদযাপন করল স্বাধীনতার ৪৫তম বার্ষিকী।