চাকরির ইন্টারভিউ


চাকরির ইন্টারভিউ দিতে গেছে এক তরুণ। শুরু হলো প্রশ্নোত্তর পর্ব—
প্র.: কংক্রিটের মেঝেতে ডিম ফেলবেন, কিন্তু ফাটবে না—কীভাবে করবেন এটা? 
উ.: কংক্রিটের মেঝে আসলে খুব শক্ত, ফাটার কোনো আশঙ্কাই নেই! 
প্র.: একটা দেয়াল বানাতে আটজন মানুষের যদি ১০ ঘণ্টা লাগে, চারজন মানুষের কত সময় লাগবে? 
উ.: কোনো সময়ই লাগবে না, কারণ দেয়ালটা ততক্ষণে তৈরি হয়ে যাবে! 


মন্তব্যসমূহ

Baki Billah বলেছেন…
প্র.: আপনার এক হাতে যদি তিনটি আপেল ও চারটি কমলা থাকে, আর আরেকটি হাতে থাকে চারটি আপেল ও তিনটি কমলা; তাহলে কী পেলেন আপনি?
উ.: বিশাল বড় হাত।
প্র.: এক হাতে একটা হাতিকে কীভাবে ওপরে তুলবেন?
উ.: এক হাতের আটবে এমন হাতিকে জীবনেও খুঁজে পাবেন না!
প্র.: একজন মানুষ কী করে আট দিন না ঘুমিয়ে থাকতে পারে?
উ.: কোনো সমস্যা নেই, সে রাতে ঘুমাবে!
প্র.: নীল সাগরে যদি একটা লাল পাথর ছুড়ে মারেন, কী হবে?
উ.: যা হওয়ার তা-ই, পাথরটি ভিজে যাবে অথবা ডুবে যাবে টুপ করে।
প্র.: কোন জিনিসটি দেখতে একটি অর্ধেক আপেলের মতো?
উ.: আপেলের বাকি অর্ধেকটি।
প্র.: ব্রেকফাস্টে কোন জিনিসটা কখনোই খেতে পারেন না আপনি?
উ.: ডিনার।
প্র.: বে অব বেঙ্গল কোন স্টেটে অবস্থিত?
উ.: লিকুইড।
পয়লা ধাক্কায় বেশ ভালোভাবেই উতরে গেল তরুণ। শুরু হলো দ্বিতীয় পর্ব। প্রশ্নকর্তা বললেন,‘আপনাকে আমি ১০টি পানির মতো সহজ প্রশ্ন করব অথবা কেবল একটা প্রশ্ন করব লোহার মতো কঠিন।
উত্তর দেওয়ার আগে ভালো করে ভেবে দেখুন, কোন অপশন বেছে নেবেন আপনি।’ তরুণ কিছুক্ষণ ভাবনার চৌবাচ্চায় সাঁতার কাটল। তারপর বলল, ‘কঠিন প্রশ্নের উত্তরটাই দিতে চাই।’
প্রশ্নকর্তা হেসে বললেন, ‘ভালো, শুভকামনা আপনার জন্য। আপনি আপনার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
এবার বলুন, কোনটা প্রথমে আসে—দিন না রাত?’
তরুণের বুকে ঢাকের বাড়ি। কালঘাম ছুটে যাচ্ছে তার।
এই প্রশ্নের উত্তরেই ঝুলে আছে তার চাকরিটা।
এবার ভাবনার সাগরে ডুব দিল সে। উত্তরে বলল, ‘দিন প্রথমে আসে, স্যার!’
‘কীভাবে?’ প্রশ্নকর্তার প্রশ্ন।
‘দুঃখিত, স্যার, আপনি ওয়াদা করেছিলেন, দ্বিতীয় কোনো কঠিন প্রশ্ন করবেন না আমাকে!’
চাকরি পাকা হয়ে গেল তরুণের।
Lion বলেছেন…
প্র.: বে অব বেঙ্গল কোন স্টেটে অবস্থিত?
উ.: লিকুইড।
Khalek Haider বলেছেন…
মুন্সীগঞ্জে জমি সংক্রান্ত্র বিরোধকে কেন্দ্র করে রাজিউর রহমান (রাজীব) নামে এক মেম্বার পেটালেন ৩ অন্তসত্ত্বা নারী সহ ৪ মহিলাকে পিটিয়েছে। এ ঘটনায় গুরুতর আহত অবস্থায় তাদেরকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে সদর উপজেলার বজ্রযোগিনী ইউনিয়নের ধানদর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, রাজিউর রহমান (রাজীব) মেম্বার ও বাদল হাওলাদারের মধ্যে দীর্ঘ ২০ বছর যাবত জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিলো । বিরোধের কারনে শনিবার দু’পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয় । কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে লাঠিসোটা নিয়ে রাজিউর মেম্বার তার লোকজন নিয়ে প্রতিপক্ষ বাদল হাওলাদারের পুরুষ শূণ্য বাড়ীতে হামলা চালিয়ে মহিলাদের এলোপাথারী পিটাতে থাকেন । এ সময় অন্তসত্ত্বা বিউটি বেগম (২০)কে অসঙ্খা জনক অবস্থায় মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অপর আহত লিপি বেগম (৩৫),সালমা বেগম (২১) সহ বিউটি বেগমের মা নিলুফা বেগম (৪৫) । খবর পেয়ে বাদল হাওলাদার তাদের বাঁচাতে এগিয়ে আসলেও সে আহত হন । হামলার শিকারে আহত বাদল হাওলাদার বলেন, রাজিউর মেম্বারের সাথে আমাদের দীর্ঘ ২০ বছর যাবত জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিলো। সেই বিরোধদের কারনে আমার সাথে সকালে কথা কাটাকাটি হয়। পরে আমি জমির পানি ছাড়াতে গেলে সেখানেও একই ঘটনা ঘটে । পরে মেম্বার ও তার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে আমার বসত বাড়ীতে হামলা চালিয়ে বাড়ীতে থাকা অন্তসত্ত্বা নারীদের ব্যাপক মারধর করে গুরুতর আহত করে এবং মারধরের ঘটনা পুলিশ ও সাংবাদিকদের জানালে প্রানে মেরে ফেলা হবে এমন হুমকি প্রদান করেন কাউকে জানাতে সাহস পাইনি।
তবে এসব বিষয় অস্বীকার করেছেন রাজিউর রহমান রাজীব মেম্বার ।
মারধরের ঘটনাটি নিশ্চিত করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মুন্সীগঞ্জ সদর থানার এসআই হাশেম বলেন, এ ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে । তদন্ত চলছে তদন্ত শেষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
Share on Facebook
Share on Twitter
Print